মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

সচরাচর জিজ্ঞাসা

  ড্রাইভিং লাইসেন্স সংক্রান্ত জিজ্ঞাসা

 

ক্রমিক নম্বর

প্রশ্ন

উত্তর

০১.

ড্রাইভিং লাইসেন্সের আবেদন ফরম কোথায় পাওয়া যায়?

বিআরটিএ-এর অফিস থেকে অথবা যে কোনো ফরম স্টেশনারির দোকান থেকে মূল ফরমের ফটোকপি গ্রহণযোগ্য।

 

০২.

লাইসেন্স ফি কত ?

লার্নার লাইসেন্স ফি ২০০/- টাকা।

 

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ১২৫০/- টাকা।

 

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স ফি ২০০০/- টাকা।

 

০৩.

ড্রাইভিং লাইসেন্সের পরীক্ষা কখন অনুষ্ঠিত হয় ?

সাধারণত প্রতি মাসে একবার অনুষ্ঠিত হয়।

 

০৪.

কি কি কাগজপত্র লাগে?

নির্ধারিত ফরমে আবেদন, মেডিকেল ফিটনেস সার্টিফিকেট, বয়স প্রমাণের জন্যজাতীয় পরিচয়পত্র/ এসএসসি সাটিফিকেট/ জন্মসনদ, নাগরিক সনদপত্র, রক্তের গ্রুপপরীক্ষার কাগজ, ছবি পাসপোর্ট সাইজ ২ টি এবং স্ট্যাম্প সাইজ ৪ টি।

 

০৫.

লাইসেন্স নবায়ন ফি কত ?

পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি ১০০০/- টাকা।

অপেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্স নবায়ন ফি ১৭৫০/- টাকা।

 

 

 


                                                                                           সাধারণ শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ পত্রিকা প্রকাশের অনুমতি প্রাপ্তির জন্য কি করতে হবে?

উত্তরঃ নির্ধারিত ফরম পূরণ ক­রে দরখাস্ত দিতে হবে।

 

 

প্রশ্নঃ পত্রিকা প্রকাশের অনুমোদন কত দিনে পাওয়া যেতে পারে?

উত্তরঃ নির্ধারিত সময়সীমা নেই। তবে৩ দিনের ম­ধ্যে কাজ শুরু করা হবে।

 

 

প্রশ্নঃ মুক্তি্যোদ্ধা সম্মানী ভাতা ­পেতেকি করতে হবে?

উত্তরঃ জেলা প্রশাসক বরাব­র আবেদন করতে হবে।

 

 

প্রশ্নঃ ভাতা কোথা হতেউত্তোলন করতে হবে?

উত্তরঃ মঞ্জুরী পেলে সংশ্লিষ্ট ইউএনও অফিস থে­কে।

 

 

প্রশ্নঃ আমিএকজন মুক্তিযোদ্ধা। আমার নাম কোন তালিকায় নেই, কি করতে হবে?

উত্তরঃ জেলা/উপজেলা কমিটি বরাব­র দরখাস্ত করতে হবে।

 

 

প্রশ্নঃ আমিমরহুম মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী/সন্তান। সৎকার খরচের টাকা কিভাবে পেতে পারি?

উত্তরঃ সংশ্লিষ্ট ইউএনও এর মাধ্য­মে আপনার আবেদন এ অফিসে জমা দিতে হবে।

 


শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্ন: উপজাতীয় সনদ কিভাবে পাওয়া যায়?
উত্তর: জেলা প্রশাসক বরাবরে আবেদন করার পর আবেদনের সঠিকতা যাচাইঅন্তে উপজাতীয় সনদ প্রদান করা হয়।
প্রশ্ন: বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্নপত্র কোথায় সংরক্ষণ করা হয়?
উত্তর: জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ট্রেজারী শাখায় বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্নপত্র সংরক্ষণ করা হয়।
প্রশ্ন: শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভিযোগের বিষয়ে কোথায় আবেদন করতে হয়?
উত্তর: জেলা প্রশাসক বরাবরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অভিযোগের বিষয়ে আবেদন করতে হয়ে। আবেদন যাচাই অন্তে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়।
প্রশ্ন:কোন প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি/ গভর্নিং বডি/ কোন কমিটি না থাকলেশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/কর্মচারীদের বেতন-ভাতা কিভাবে উত্তোলন করতেহবে?
উত্তর: যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি/ গভর্নিং বডি/কোন কমিটি নাই সে সকল প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক/ কর্মচারীদের বেতন-ভাতা জেলাপর্যায়ে জেলা প্রশাসক/ উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্বাক্ষরকরেন।

ফরমস ও স্টেশনারী শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ সরকারী বিভিন্ন খাতে টাকা জমা দেয়ার জন্য চালান ফরম কি এ শাখা হতে দেয়া হয়?

উত্তরঃ মজুদ বিবেচনায় চালান ফরম সরবরাহ দেয়া হয়।

 

 

প্রশ্নঃ এ শাখা হতে কর্মচারীদের সার্ভিস বহি বিক্রয় করা হয় কিনা?

উত্তরঃ না, বিক্রয় করা হয় না। বিজি প্রেস অথবা অন্য কোন স্থান হতে সংগ্রহ করতে পারেন।

 

 

প্রশ্নঃ আর ও আর / ডিসিআর এর নকল দেয়া হয় কিনা?

উত্তরঃ না, দেয়া হয় না। সেটেলম্যান্ট রেকর্ডরুম/ রাজস্ব মহাফেজখানা হতে দেয়া হয়।

 

 

প্রশ্নঃ গেজেটেড কর্মকর্তাদের এসিআর ফরম দেয়া হয় কিনা?

উত্তরঃ না, দেয়া হয় না।

 



                                                                                        সংস্থাপন শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ ৩য় শ্রেণীর কর্মচারীদের শূন্য পদের বিপরীতে লোক নিয়োগ কবে করা হবে?
উত্তরঃ ছাড়পত্রের মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য লেখা হয়েছে নির্দেশ প্রাপ্তির পর নিয়োগের ব্যবস্থা নেয়া হবে।
প্রশ্নঃ পেনশনের জন্য আবেদন করতে হলে কিকি কাগজপত্রের প্রয়োজন হয় ?
উত্তরঃ (ক) পেনশন আবেদন ফরম -(২.১) ৩ কপি
(খ) ফটো- ৪ কপি
(গ) নমুনা স্বাক্ষর ও পাঁচ আঙ্গুলের ছাপ (সংযোজনী-৬) - ৩ কপি
(ঘ) ইএলপিসি - ৩ কপি
(ঙ) না-দাবী পত্র - ৩ কপি
(চ) উওরাধিকারী সনদ (সংযোজনী-২)- ৩ কপি
(ছ) না-দাবী প্রত্যয়ন পত্র (সংযোজনী-৮)- ৩ কপি
(জ) চাকুরীর খতিয়ান বহি।
প্রশ্নঃ পারিবারিক পেনশন কে কে প্রাপ্য হন ?
উত্তরঃ (ক) স্বামীর ক্ষেত্রে স্ত্রী ও স্ত্রীর ক্ষেত্রে স্বামী
(খ) স্বামী ও স্ত্রীর মৃত্যু হলে নাবালক সন্তান/প্রতিবন্ধী সন্তান।
প্রশ্নঃ বদলীজনিত কারণে নতুন কর্মস্থলে যোগদানের জন্য কত দিন সময় পাওয়া যায় ?
উত্তরঃ প্রস্তুতির জন্য ৬ কর্ম দিবস (সাপ্তাহিক সরকারী ছুটি ব্যতীত) ও এক কর্মস্থল হতে অন্য কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সময়।
প্রশ্নঃ জি,পি,এফ অগ্রিম চলমান অবস্থায় কয়টি অগ্রিম গ্রহণ করা যায় ?
উত্তরঃ ৩ টি
প্রশ্নঃ গৃহ নির্মাণ/মোটকার/মোটর সাইকেল/কম্পিউটার/বাইসাইকেল অগ্রিমের জন্য কত টাকা করে মঞ্জুরী পাওয়া যায় ?
উত্তরঃযথাক্রমে ৩৬ মাসের মূলবেতনের সমপরিমান অর্থ অথবা সর্বোচ্চ ১,২০,০০০/-টাকা, ৬০,০০০/- টাকা, ৩৫,০০০/- টাকা, ৫০,০০০/- টাকা, ৩,০০০/- টাকা।
প্রশ্নঃ শ্রান্তি বিনোদন ছুটি ও ভাতা কত দিন পর পর প্রাপ্য হন ?
উত্তরঃ ৩ বছর পর পর।
প্রশ্নঃ অর্জিত গড় বেতনে ছুটি একসাথে কত দিন নেয়া যায় ?
উত্তরঃ (ক) সাধারণ ক্ষেত্রে ৪ মাস পর্যন্ত ।
(খ) চিকিৎসাজনিত কারণে ৬ মাস পর্যন্ত।
প্রশ্নঃ নৈমিত্তিক ছুটি একসাথে কত দিন নেয়া যায় ?
উত্তরঃ ১০ দিন পর্যন্ত।
প্রশ্নঃ বদলীজনিত কারণে অগ্রিম ভ্রমণ ভাতা গ্রহণ করা যায় কিনা?
উত্তরঃ হ্যাঁ । ১ মাসের মূল বেতনের সমপরিমান অর্থ।
প্রশ্নঃ মাতৃত্বজনিত ছুটি কত বার গ্রহণ করা যায় ?
উত্তরঃ সর্বোচ্চ ২ বার।
প্রশ্নঃ মাতৃত্বজনিত ছুটি অর্জিত ছুটি হতে কর্তন হয় কিনা?
উত্তরঃ না



জুডিশিয়াল মুনশিখানা শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ মোবাইল কোর্ট কি?
উত্তরঃ মোবাইল কোর্ট হচ্ছে মন্ত্রিপরিষদবিভাগের নির্দেশনা মোবাবেক একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক পরিচালিতভ্রাম্যমান আদালত যা কয়েকটি আইন ও অধ্যাদেশের বলে অপরাধীকে তাৎক্ষণিক ভাবেজরিমানা ও কারাদন্ড প্রদান করে থাকে।
প্রশ্নঃ ডিটেন্যু এবং নিরাপদ হেফাজতিদের সাথে আত্নীয়-স্বজনদের সাক্ষাৎ করতে হলে তাদের কি করতে হয়?
উত্তরঃডিটেন্যুদের সাথে আত্নীয়-স্বজনদের সাক্ষাৎ করতে হলে তাদেরকে জেলাম্যাজিস্ট্রেট বরাবর আবেদন করতে হয় এবং জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বিচার বিশ্লেষণকরে অনুমোদন প্রদান করেন।
প্রশ্নঃ কোন কয়েদী মারা গেলে তাদের সুরতহাল কে করে থাকেন?
উত্তরঃকোন কয়েদী মারা গেলে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাদের সুরতহাল করে থাকেন।
প্রশ্নঃকোন কয়েদীর জমি বিক্রি কিংবা ব্যাংক হতে টাকা উত্তোলনের জন্য দলিলে বাচেকে স্বাক্ষর প্রদানের জন্য কার অনুমতির প্রয়োজন হয় এবং কিভাবে অনুমতিপেয়ে থাকে?
উত্তরঃ কোন কয়েদীর জমি বিক্রি কিংবা ব্যাংক হতে টাকাউত্তোলনের জন্য দলিলে বা চেকে স্বাক্ষর প্রদানের জন্য জেলা ম্যাজিস্ট্রেটবরাবর আবেদন দাখিল করতে হয়। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমোদনক্রমে কার্যকরীব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট জেল সুপার, জেলা রেজিস্ট্রার, সাবরেজিস্ট্রার বরাবর আবেদন পত্র প্রেরণ করা হয়।
প্রশ্নঃ কোন ব্যক্তি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে হলে তাদের কোথায় এবং কিভাবে আবেদন করতে হয়?
উত্তরঃকোন ব্যক্তি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে হলে সরকার নির্ধারিত ফরমে চাহিততথ্যাদি পূরণপূর্বক জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন পত্র দাখিল করতে হয়।
প্রশ্নঃ একজন ব্যক্তি সর্বোচ্চ কয়টি আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে পারে?
উত্তরঃ ১টি শর্ট ব্যারেল ও ১টি লং ব্যারেল।
প্রশ্নঃ ব্যক্তিগতভাবে কোন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে পারে?
উত্তরঃ ব্যক্তিগতভাবে ১টি শর্ট ব্যারেল ও ১টি লং ব্যারেল আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে পারে।
প্রশ্নঃ প্রতিষ্ঠান কোন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে পারে?
উত্তরঃ প্রতিষ্ঠান লং ব্যারেলের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স পেতে পারে।
প্রশ্নঃ কোন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স প্রদানের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন হয়।
উত্তরঃ পিস্তল, রাইফেল ও রিভলবার।
প্রশ্নঃ কোন ধরণের আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন হয় না।
উত্তরঃ শটগান (এক নলা/ দু’নলা বন্দুক) এর লাইসেন্সের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন হয় না



ট্রেজারি শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ ট্রেজারী থেকে জনগণ সরাসরি স্ট্যাম্প ক্রয় করতে পারে কি না?
উত্তরঃলাইসেন্সধারী স্ট্যাম্প ভেন্ডারগণ চালানের মাধ্যমে ব্যাংকে টাকা জমা দিয়েচালানের কপি এ শাখায় দাখিল করার পর স্ট্যাম্প বিতরণ করা হয়ে থাকে। মামলারআরজি কোর্ট ফি স্ট্যাম্প চালানের মাধ্যমে টাকা জমা দিয়ে চালানের কপি দাখিলকরার পর সংগ্রহ করতে পারেন।
প্রশ্নঃ ট্রেজারী থেকে স্ট্যাম্পে ভেন্ডারশীপ লাইসেন্স প্রদান করা হয় কি না?
উত্তরঃ হ্যাঁ।
প্রশ্নঃ পাবলিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ট্রেজারীতে সংরক্ষণ করা হয় কি না?
উত্তরঃ হ্যাঁ।
প্রশ্নঃ ট্রেজারী থেকে সপ্তাহে কয়দিন স্ট্যাম্পে/ কোর্ট ফি বিতরণ করা হয়?
উত্তরঃসপ্তাহের প্রতি মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার চালানের মাধ্যমে টাকা জমা দেয়ার পরচাহিদা প্রাপ্তি সাপেক্ষে স্ট্যাম্প বিতরণ করা হয়ে থাকে।

 

এসএ শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্ন: কৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত আবেদন ফরম কোথায় পাওয়া যায়?
উত্তর: সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসে কৃষি খাস জমি বন্দোবস্ত ফরম পাওয়া যায়।
প্রশ্ন: সর্বোচ্চ কতটুকু জমি বন্দোবস্ত দেয়া যায়?
উত্তর: সর্বোচ্চ ১.০০ একর জমি বন্দোবস্ত দেয়া যায়।
প্রশ্ন: কোন শ্রেণীর মানুষ কৃষি খাস জমি পাওয়ার অধিকারী?
উত্তর: ভূমিহীন কৃষক পরিবার কৃষি খাস জমি পাওয়ার অধিকারী।
প্রশ্ন: কৃষি খাস জমি বন্দোবস্তের বিষয়ে কোন কমিটি আছে কি?
উত্তর: কৃষি খাস জমি বন্দোবস্তের বিষয়ে প্রতি উপজেলায় ১টি উপজেলা কমিটি এবং জেলায় জেলা কমিটি রয়েছে।
প্রশ্ন: জমা খারিজের আবেদন কোথায় করতে হয়?
উত্তর: সংশ্লিষ্ট উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) বরাবরে আবেদন করতে হয়।
প্রশ্ন: জমা খারিজ মঞ্জুর ও বাতিলের অথরিটি কে?
উত্তর: সংশ্লিষ্ট সহকারী কমিশনার (ভূমি) জমা খারিজ মঞ্জুরী ও বাতিলের ক্ষমতা সংরক্ষণ করেন।
প্রশ্ন: বাতিল আদেশের বিরুদ্ধে আপীলের কোন সুযোগ আছে কি? থাকলে অথরিটি কে?
উত্তর: হ্যাঁ। সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বরাবরে আপীল আবেদন করতে পারেন।
প্রশ্ন: জলমহাল/বালুমহাল ইজারা প্রদানের কোন নীতিমালা আছে কি?
উত্তর: হ্যাঁ।
প্রশ্ন: সরকারী/ব্যক্তিমালিকানাধীন জবরদখলকৃত সম্পত্তি কিভাবে অবৈধ দখলমুক্ত করা যায়?
উত্তর:সরকারী সম্পত্তির ক্ষেত্রে সরকারী প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও ব্যক্তিমালিকানাধীন সম্পত্তির ক্ষেত্রে ব্যক্তির আবেদনের প্রেক্ষিতে সহকারীকমিশনার (ভূমি) এর সুপারিশক্রমে জবরদখলকৃত ভূমি হতে উচ্ছেদ করা যায়



জেনারেল সার্টিফিকেট শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্ন: সার্টিফিকেট মোকদ্দমার সুদের টাকা মওকুফ করা যাবে কি না?
উত্তর: সুদের টাকা মওকুফ করা যাবে না।
প্রশ্ন: সার্টিফিকেট মোকদ্দমার টাকা কিস্তিতে পরিশোধ করা যাবে কি না?
উত্তর: কিস্তিতে টাকা পরিশোধ করা যাবে।
প্রশ্ন: এডভোকেট ছাড়া সার্টিফিকেট মোকদ্দমা নিজে চালানো যায় কিনা?
উত্তর: চালানো যাবে।

 

ভূমি অধিগ্রহণ শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

 

প্রশ্নঃ অধিগ্রহণকৃত ভূমির ক্ষতিগ্রস্ত মালিকগণ কিভাবে এবং কি কি কাগজপত্র দাখিলের মাধ্যমে ক্ষতিপূরণের অর্থ প্রাপ্ত হবেন ?

উত্তরঃ ১৯৮২ সনের সম্পত্তি অধিগ্রহণ ম্যানুয়েল মোতাবেক আবেদনের সহিত নিম্নলিখিত কাগজপত্রাদি দাখিল করতে হবেঃ

 

(ক) সি,এস, পর্চা।

(খ) এস,এ, পর্চা (আর ও আর)

(গ) দলিল, ভায়াদলিল।

(ঘ) নাম খারিজ।

(ঙ) হাল সন পর্যন্ত খাজনার রশিদ।

(চ) চেয়ারম্যান প্রদত্ত পরিচয়পত্র।

(ছ) পাসপোর্ট সাইজের ছবি চেয়ারম্যান কর্তৃক সত্যায়িত।

(জ) ১৫০/- (একশত পঞ্চাশ) টাকা মূল্যের নন জুডিশিয়াল ষ্ট্যামেন্প অঙ্গীকারনামা।

(ঝ) ওয়ারিশান সদনপত্র।

(ঞ) মাঠ পর্চা।

 

 

প্রশ্নঃ পুরাতন এলএ কেসের বিভিন্ন তথ্যাদি কিভাবে পাওয়া যাবে?

উত্তরঃ সংশ্লি­ষ্ট সকলকে এ ব্যাপারে রাজস্ব মহাফেজ খানার মাধ্যমে ইনফরমেশন স্লিপ দাখিল করতে হবে।

 


প্রশ্নঃ প্রত্যাশী সংস্থা কর্তৃক জমি অধিগ্রহণের বিষয়ে কি কি কাগজপত্র দাখিলের প্রয়োজন?

উত্তরঃ ১৯৮২ সনের স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ম্যানুয়েল মোতাবেক নিম্নলিখিত কাগজপত্রাদি দাখিল করতে হবে-

(ক) প্রত্যাশী সংস্থার নিয়ন্ত্রণকারী মন্ত্রণালয়ের ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত প্রশাসনিক অনুমোদন পত্র।

(খ) ন্যূনতম জমির প্রয়োজনীয়তা সংক্রান্ত প্রত্যয়ন পত্র।

(গ) প্রস্তাবিত জমির দাগ সূচী।

(ঘ) লে-আউট প্ল্যান।

(ঙ) সর্বশেষ জরিপের নক্সায় প্রস্তাবিত জমির সীমানা লাল কালি দ্বারা চিহ্নিত করতে হবে।

(চ) নির্ধারিত ছকে বর্ণনা।

(ছ) পৌরসভার অনাপত্তি পত্র।

(ঝ) প্রকল্পের জন্য আর্থিক মঞ্জুরী কিংবা বাজেট বরাদ্দ সংক্রান্ত পত্র



রাজস্ব মহাফেজখানা শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

প্রশ্নঃ যে সকল আর ও আর এর সই মুহুরী নকল জেলা সেটেলমেন্ট রেকর্ডরুম হতেপাওয়া যায়না সেগুলি পূর্বে বিভিন্ন ভূমি অফিস হতে সংগ্রহপূর্বক মহাফেজখানাহতে সরবরারহ করা হতো- এখন সরবরাহ করা হয়না, কারণ কি? তাহলে আমারা কোথায়পাব?
উত্তরঃ বিগত ২৫/০৬/০৯ তারিখের জেলা মাসিক রাজস্ব সভায় এ ধরণের নকলসরবরাহ না করার সিদ্ধান্ত হওয়ার কারণে এ ধরনের নকল দেয়া বন্ধ আছে। জানা যায়ঢাকা সেটেলমেন্ট অফিসে এ সকল নকল পূর্বে সরবরাহ করা হতো। বর্তমানে সরবরাহকরে না। কর্তৃপক্ষ কর্তৃক কোন সিদ্ধান্ত না থাকায় আমরা আর ও আর সংক্রান্তনকল দিতে পারছিনা।
প্রশ্নঃ আর ও আর ও সি এস এর নকশা পাওয়া যায় কিনা? না হলে কোথায় পাওয়া যাবে?
উত্তরঃ না। এগুলি জেলা সেটেলমেন্ট রেকর্ডরুমে সংরক্ষিত আছে।
প্রশ্নঃ সই মুহুরী নকলের দরখাস্ত কোথা হতে সংগ্রহ করা যাবে? কত টাকা কোর্ট ফি দেয়া লাগবে এবং কত দিনে নকল পাওয়া যাবে?
উত্তরঃ১০/- (দশ) টাকার কোর্ট ফিসহ সরকার নির্ধারিত কার্টিজে দরখাস্ত করতে হয়। যাবিভিন্ন স্ট্যাম্প ভেন্ডারের নিকট পাওয়া যাবে। এস্টিমেট পাওয়ার তিন দিনেরমধ্যে নকল সরবরাহ করা হয়।
প্রশ্নঃ দলিলের নকল পাওয়া যায় কিনা? না হলে কোথায় পাওয়া যাবে?
উত্তরঃ না। এ সকল নকল সাব-রেজিষ্ট্রি অফিস হতে উঠানো যাব



ফ্রন্ট ডেস্ক শাখা

জিজ্ঞাস্য সমূহ

 

প্রশ্ন: শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা কত নম্বর কক্ষে অবস্থিত?

উ: ০৮ নং কক্ষে অবস্থিত।

 

প্রশ্ন: উপজাতীয় সনদপত্র দেয়া হয় কোন শাখা থেকে?

উ: শিক্ষা ও কল্যাণ শাখা থেকে।

 

প্রশ্ন: জমির পর্চার জাবেদ নকল কোন শাখা থেকে দেওয়া হয়?

উ: সেটেলমেন্ট রেকর্ডরুম থেকে।

 

প্রশ্ন: জেলা তথ্য বাতায়নের ঠিকানা কী?

উ:www.pirojpur.gov.bd

 

প্রশ্ন: আগ্নেয়াস্ত্রের লাইসেন্স দেয়া হয় কোন শাখা থেকে?

উ: জুডিশিয়াল মুন্সীখান শাখা থেকে?

 

প্রশ্ন: জেলা প্রশাসক সাধারণজনগণের সাথে কবে দেখা করেন?

উ: প্রতি সপ্তাহের বুধবার।

 

প্রশ্ন: কোন অভিযোগ থাকলে কোথায় জমা দিতে হবে?

উ: ফ্রন্ট ডেস্ক শাখায় রক্ষিত অভিযোগ বাক্সে।

 

প্রশ্ন: খাস জমি বরাদ্দ পেতে হলে কোন শাখায় যোগাযোগ করতে হবে?

উ: এসএ শাখায়।

 

প্রশ্ন: মুক্তিযোদ্ধা সংক্রান্ত কাজ কোন শাখা থেকে পরিচালিত হয়?

উ: সাধারণ শাখা থেকে।

 

প্রশ্ন: সিনেমা হলের লাইসেন্স বাতিল করার অধিকার আছে কোন শাখার?

উ: লাইসেন্স ও বিচার শাখা।